দেশজুড়ে

হবিগঞ্জে প্রাচীন  ১০৮ টি গাছ কাটার সিদ্ধান্ত পৌরসভার-বাপার প্রতিবাদ

প্রিন্ট করুন

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা । সৌন্দর্যবর্ধনের নামে হবিগঞ্জের সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া মিলনায়তনের সীমানা প্রাচীরের ভিতরে থাকা ৭০টি এবং বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুলের সামনের ৩৮টি গাছসহ মোট ১০৮টি
প্রাচীন গাছ কাটার  ২৮ ডিসেম্বর দরপত্র আহ্বান করে ৩ লাখ ৫১ হাজার টাকায় চূড়ান্ত করা হয় এ গাছ কাটার দরপত্র।
তবে প্রাচীন এ গাছগুলো কাটার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)। গাছকাটা প্রক্রিয়া বন্ধ করতে বাপা হবিগঞ্জ শাখার পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।

বাপা হবিগঞ্জের সভাপতি অধ্যক্ষ ইকরামুল ওয়াদুদ স্বাক্ষরিত স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, অপরিকল্পিত নগরায়নসহ সড়ক প্রসস্ত করণের অজুহাতে এমনিতেই হবিগঞ্জে অনেক বৃক্ষ নিধন হয়েছে। এতে বনচারী ও বৃক্ষচারী পশুপাখি হারাচ্ছে তাদের আবাসস্থল। এর ফলে পরিবেশগত বিপর্যয়, জীববৈচিত্র্য ধ্বংস ও বৈশ্বিক উষ্ণতার সৃষ্টি হয়। তাই কিবরিয়া মিলনায়তন চত্বরের বৃক্ষ কর্তনের সিদ্ধান্ত বাতিল করতে হবে।

হবিগঞ্জের শাহ এ এম এস কিবরিয়া পৌর মিলনায়তনের সীমানা প্রাচীরের ভিতরে আকাশমণি, শিলকড়ই, মেহগনি, জলপাইসহ নানা প্রজাতির ৭০টির অধিক গাছ আছে। অধিকাংশ গাছের বয়স ২০ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। এসব গাছের ছায়া গিয়ে পড়ে পাশের হবিগঞ্জ সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে। এর সুবাদে এ মাঠে সকাল-বিকেল খেলাধুলা ও শরীরচর্চা করেন বিভিন্ন বয়সী লোকজন। নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে এসব গাছে স্থান নেয় পরিযায়ীসহ নানা জাতির পাখি। তবে ‘সৌন্দর্যবর্ধনের’ নামে মিলনায়তনের চারপাশের সীমানা ঘেঁষে বেড়ে ওঠা গাছগুলো কাটার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হবিগঞ্জ পৌরসভা। জরুরি ভিত্তিতে ঠিকাদারকে গাছ কাটার অনুমতি দেয়া হবে। এরইমধ্যে গাছ কাটার জন্য দরপত্রও চূড়ান্ত করা হয়েছে।
হবিগঞ্জ পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সামনে ৭০টি গাছ ও বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুলের সামনের ৩৮টি গাছসহ মোট ১০৮টি গাছ কাটার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এর জন্য গত ২৮ ডিসেম্বর দরপত্র আহ্বান করে হবিগঞ্জ পৌরসভা। ৩ লাখ ৫১ হাজার টাকায় চূড়ান্ত করা হয় এ গাছ কাটার দরপত্র। এখন কার্যাদেশ পেলেই গাছ কাটা শুরু করবেন ঠিকাদার।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিম জানান, দীর্ঘদিন অপরিচ্ছন্ন থাকার কারণে গাছগুলো জঙ্গলে পরিণত হয়েছে। অনেক গাছের ডালপালা নষ্টও হয়ে যাচ্ছে। তাই মিলনায়তনটির সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য গাছগুলো কাটার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। এতে পরিবেশ আরও পরিচ্ছন্ন হবে। গাছ কাটার জন্য পরিবেশ অধিদফতরের অনুমোদনও নেয়া হয়েছে।

তবে গাছ কাটার বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন শহরের সচেতন বাসিন্দারা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্নভাবে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন তারা। প্রয়োজনে তারা তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলবেন বলে ঘোষণা করেছেন।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল জানান, গাছগুলো পরিবেশগত ভারসাম্য রক্ষা করছে। কিবরিয়া মিলনায়তন ও পাশের নিউফিল্ড এলাকায় সুন্দর ছায়া তৈরি হয়। এগুলো কাটা হলে পরিবেশ ও প্রতিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হবে।গাছকাটা ঠেকাতে প্রয়োজনে তারা তীব্র প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন বলেও জানান তিনি।

ফটো। প্রাচীন ৭০টি গাছ কাটার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হবিগঞ্জ পৌরসভা


Related Articles

Back to top button
Close