দেশজুড়ে

বানিয়াচংয়ে জাতীয় শিশু দিবস উদযাপনের সময় হেফাজত নেতাকে তিরস্কার

প্রিন্ট করুন

নিজস্ব প্রতিনিধি, ১৭ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০১ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস ২০২১ যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করেছে বানিয়াচং উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা পরিষদ।

এ উপলক্ষে স্থানীয় উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে সকাল ১১ টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানার সভাপতিত্বে ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কাউছার শোকরানার সঞ্চালনায় আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী, আওয়ামীলীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আমির হোসেন মাষ্টার, সেক্রেটারী ইকবাল হোসেন খান, ইউএইচও ডা. শামীমা আক্তার, থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ এমরান হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার আব্দুল খালেক, প্রেন্সিপাল মাওলানা আব্দাল হোসেন খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দারুজ্জামান খাঁন ধন মিয়া, রোটারিয়ান রেজাউল মোহিত খান, শিক্ষক বিপুল ভূষন রায়, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হাসিনা আক্তার, আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাজাহান মিয়া।

উপস্থিত ছিলেন, সাবরেজিস্ট্রার মোস্তফা মোঃ ইসমত পাশা, যুবলীগ সেক্রেটারী শেখ মোঃ আলমগীর হোসেন, সেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি আশরাফ আলী সোহেল, প্রেসক্লাব সভাপতি মোশাহেদ মিয়া, রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি জীবন আহমেদ লিটন, সিনিয়র সহসভাপতি শেখ সফিকুল ইসলাম সফিক, সেক্রেটারী নজরুল ইসলাম তালুকদার প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিশুকাল থেকেই, ন্যায়পরায়ন ও সাহসী ছিলেন। ৮ম শ্রেণীতে অধ্যায়নকালে অন্যায়ের প্রতিবাদ করে কারাভোগ হয়েছিলেন। ধীরে ধীরে তিনি বাঙ্গালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্ঠা হয়ে উঠেন। ৫৫ বছরের জীবনে তিনি অনেকবার কারাভোগ করেন। বঙ্গবন্ধুর ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ভাষণে উদ্বুদ্ধ হয়ে নিরস্ত্র বাঙ্গালি স্বসস্ত্র ঐক্যবদ্ধ বাঙ্গালি হিসেবে মহান মুক্তিযোদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েন। বঙ্গবন্ধুর জন্যই আজ আমরা পেয়েছি স্বাধীন ও উন্নত বাংলাদেশ। তাই আসুন শুধু মুখেই বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ না করে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করি।

অনুষ্ঠানে প্রশাসন কর্তৃক আমন্ত্রিত অতিথি হেফাজত নেতা ও বানিয়াচং সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার প্রেনিস্পাল মাওলানা আব্দাল হোসেন অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করায় তাকে তিরস্কার করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা হায়দারুজ্জামান খান ধন মিয়া। ধন মিয়া বলেন, গতকাল ইসলামী সম্মেলনে সরকারের বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়ে আজ বঙ্গবন্ধুর অনুষ্ঠানে আসার কারন কি ? এজন্যই বঙ্গবন্ধু কন্যার উন্নয়ন ম্লান হচ্ছে। বড়বড় জনপ্রতিনিধিরাই তাদের আশ্রয় দিয়ে তাদের সাথে নিয়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যান। কিন্ত মনে রাখবেন আগাছারা কখনও আওয়ামীলীগের দুর্দিনে সাথে থাকবেনা। প্রকৃত বঙ্গবন্ধু প্রেমিকরাই আওয়ামীলীগের শক্তি।

আলোচনা সভা শেষে, উপজেলা প্রশাসন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিনকে আনন্দের দিন আখ্যা দিয়ে ব্যতিক্রমী মিষ্টি বিতরনের উদ্যোগ নেয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে উপজেলায় ৫৮ গৃহহীন পরিবারকে প্রদানকৃত গৃহের পরিবারের সদস্যদের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করে আনন্দ ভাগাভাগি করা হয়।


এই বিভাগের সর্বশেষ

Back to top button
Close